25 C
Dhaka, BD
Home Blog

আর্মেনিয়ার কাছ থেকে কারাবাখের শেষ জেলার দখল নিল আজারবাইজান

42

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : বিরোধপূর্ণ নাগোরনো-কারাবাখ অঞ্চলে আর্মেনিয়ার ছেড়ে যাওয়া শেষ জেলায় প্রবেশ করেছে আজারবাইজানের সেনাবাহিনী। মঙ্গলবার (১ ডিসেম্বর) আজেরি প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রকাশিত ভিডিয়োতে দেখা গেছে, লাচিন জেলায় আজারবাইজানের পতাকা নিয়ে সেনাবাহিনীর একটি কলাম প্রবেশ করছে। ফরাসি বার্তা সংস্থা এএফপি খবরটি জানিয়েছে।

আন্তর্জাতিকভাবে নাগোরনো-কারাবাখ আজারবাইজানের অংশ বলে স্বীকৃত। কিন্তু এলাকাটিতে বসবাস ছিল আর্মেনিয় জনগোষ্ঠীর মানুষদের। সেখানে নিজেদের বিচ্ছিন্নতাবাদী সরকারও প্রতিষ্ঠা করেছিল তারা। সম্প্রতি তারই জেরে ছয় সপ্তাহ ধরে যুদ্ধ হয়েছে সেখানে।

শেষ পর্যন্ত যুদ্ধে আর্মেনিয়া পর্যুদস্ত হয়ে পড়লে রাশিয়ার হস্তক্ষেপে শান্তিচুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে। ত্রিদেশীয় চুক্তিতে আর্মেনিয়া কারাবাখের তিনটি জেলা ছেড়ে দিতে সম্মত হয়। আগদাম ও কালবাজারে আগেই প্রবেশ করেছে আজেরি বাহিনী। এবার লাচিন জেলাতেও তারা অবস্থান নিল।

আগের দুটি জেলার মতোই লাচিনের বাসিন্দারা হস্তান্তরের আগেই এলাকা ছেড়ে চলে গেছেন। যাওয়ার সময় সঙ্গে করে তাদের আসবাবপত্র, গবাদি-পশু, এমনকি প্লাস্টিকের পাইপও নিয়ে গেছে।

অনেক গ্রামের বাসিন্দা চলে যাওয়ার আগে নিজেদের বাড়ি পুড়িয়ে দিয়েছেন। সোমবার (৩০ নভেম্বর) সন্ধ্যায় দুটি বাড়িতে আগুন দেখা গেছে।

স্থানীয় কর্মকর্তা দাভিত দাবতিয়ান জানান, স্থানীয়দের চলে যাওয়ার জন্য সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত সময় দেওয়া হয়েছিল। তবে আর্মেনিয়া সীমান্তের লাচিন করিডোরের মানুষদের জন্য এই সময়সীমা প্রযোজ্য ছিল না।

নগর সভায় অংশ নেবেন নাগরিকরাও : ডিএনসিসি মেয়র

17

নিজস্ব প্রতিবেদক : ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) নগর সভায় নাগরিকদের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করা হবে বলে জানিয়েছেন মেয়র আতিকুল ইসলাম। মঙ্গলবার (১ ডিসেম্বর) রাতে ‘জনতার মুখোমুখি নগরসেবক’ এই হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করে ফেসবুক লাইভে এসব বলেন তিনি। সভাটি উপস্থাপন করেন অভিনেতা ফেরদৌস।

ফেসবুক লাইভে প্রশ্নোত্তর পর্বে তিনি বলেন, স্থানীয় সরকার আইন অনুযায়ী করপোরেশনের নগরসভাসহ প্রতিটি সভায় নাগরিকদের প্রবেশাধিকার রয়েছে। কিন্তু ডিএনসিসির কোনো সভাই নাগরিকদের আমন্ত্রণ জানানো হয় না।

এক প্রশ্নের জবাবে মেয়র বলেন, নগরীর প্রতিটি সভায় নাগরিকদের যুক্ত করতে চাই। করোনার কারণে ডিএনসিসির নগর সভা করতে পারছি না। পরবর্তী নগর সভায় এই বিষয়টাকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দেব।

তিনি বলেন, আমি জনতার মুখোমুখি হয়েছি। নাগরিকেরা কথা বলতে পারছেন। এভাবে প্রত্যেক জনপ্রতিনিধির জবাবদিহিতা থাকতে হবে। জবাবদিহিতা যত বেশি করব তত বেশি শহরে উন্নতি হবে।

ডিএনসিসি মেয়রের মতে, সবাই গ্রিন সিটি, ক্লিন সিটি চায়। কিন্তু নগরে এসটিএস (ওয়ার্ডভিত্তিক বর্জ্য ব্যবস্থাপনা ঘর) নির্মাণের পর্যাপ্ত জায়গা নেই। সরকারের বিভিন্ন সংস্থার অনেক জমি খালি পড়ে আছে। সেগুলো পেলে বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় আধুনিকায়ন করা সম্ভব হবে।

মশার উপদ্রব প্রসঙ্গে মেয়রের দাবি, মশা পৃথিবীর জন্ম থেকেই আছে। ফেরাউনের আমলেও ছিল। মশামুক্ত ঢাকা না বলে, মশাকে কীভাবে নিয়ন্ত্রণে আনা যায়, আমরা তা নিয়ে কাজ করছি। এ জন্য চিরুনি অভিযান থেকে শুরু করে অনেক পদক্ষেপ বাস্তবায়ন করেছি। এখন কিউলেক্স মশার দিন। গত শীতকালের চেয়ে এই শীতে মশা অনেকটা নিয়ন্ত্রণে রেখেছি।

তার মতে, এটার ধারাবাহিকতা রাখতে হবে। এছাড়া আমরা খাল ও লেক পরিষ্কার করেছি। আমরা ফোর্থ জেনারেশন ওষুধ নিয়ে এসেছি। ৬৬৬টি স্থানে ওষুধগুলো দিয়েছি। এতে মশা কোনো ধরনের ডিম পাড়তে পারবে না। আগে মশার ওষুধ ব্যবহার নিয়ে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ ছিল। আমি নির্বাচিত হওয়ার পর সেই সিন্ডিকেট ভেঙেছি।

ঢাকা শহরে বেওয়ারিশ কুকুর প্রসঙ্গে তিনি বলেন, বেওয়ারিশ কুকুরকে ঢিল দিলে হিংস্র হয়, অন্যথায় না। এখন সিটি করপোরেশনের কাজ হচ্ছে ভ্যাকসিনেশন করা। কোনো কুকুরকে মারা বা স্থানান্তর করা হবে না। তবে কুকুরকে ভ্যাকসিন ও বন্ধ্যাকরণ কার্যক্রম চলমান থাকবে।

আবারও দাম কমল সোনার

145

অর্থ ও বাণিজ্য : দেশের বাজারে সোনার দর দাম আরও এক দফা কমানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতি। নতুন দর বুধবার (২ ডিসেম্বর) থেকে সারা দেশে কার্যকর হবে।

মঙ্গলবার (১ ডিসেম্বর) রাত ১০টার দিকে বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতি এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে তথ্যটি নিশ্চিত করেছে।

সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, এবার ভরিতে ১ হাজার ১৬৬ টাকা কমছে। তাতে ভালো মানের অর্থাৎ ২২ ক্যারেটের এক ভরি সোনার অলংকার কিনতে লাগবে ৭২ হাজার ৬৬৭ টাকা। এছাড়া ২১ ক্যারেট ৬৯ হাজার ৫১৭ টাকা, ১৮ ক্যারেট ৬০ হাজার ৭৬৯ টাকা। সনাতন পদ্ধতির সোনার অলংকারের ভরি বিক্রি হবে ৫০ হাজার ৪৪৭ টাকায়।

যদিও রুপার দামে কোনো পরিবর্তন আনেনি জুয়েলার্স সমিতি। ভালো মানের প্রতি ভরি রুপার দাম ১ হাজার ৫১৬ টাকা।

২১ ক্যারেটের রুপার অলংকার বিক্রি হচ্ছে এক হাজার ৪৩৫ টাকায়। ১৮ ক্যারেটের ভরি বিক্রি হচ্ছে এক হাজার ২২৫ টাকায়। আর সনাতন পদ্ধতির রুপার গহনা বিক্রি হচ্ছে ৯৩৩ টাকায়।

প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাস মহামারির শুরু থেকেই সোনার দাম বাড়ছিল। কয়েক দফা বেড়ে মাঝে কিছু কমলেও গত অগাস্ট মাসে দেশের বাজারে সোনার ভরি ৭৭ হাজার টাকা ছাড়িয়ে যায়, যা ইতিহাসে সর্বোচ্চ।

তারপর যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচন গিয়ে অনিশ্চয়তায় সোনার বাজারে স্থিরতা আসছিল না।

উল্লেখ্য, গত ২৩ জুন সোনার দাম ভরিতে ৫ হাজার ৮২৫ টাকা, গত ২৪ জুলাই ২ হাজার ৯১৬ টাকা এবং ৬ আগস্ট ৪ হাজার ৪৩৩ টাকা বৃদ্ধি করে জুয়েলার্স সমিতি।

তারপর দুই দফায় কমে ৪ হাজার ৯৫৮ টাকা। সর্বশেষ গত ২৫ নভেম্বর সোনার দাম ভরিতে সাড়ে ২ হাজার ৫০৭ টাকা কমিয়েছিল সমিতি।

ম্যারাডোনার মৃতদেহ চুরির আশঙ্কা, কঠোর পাহারায় পুলিশ

21

স্পোর্টস ডেস্ক : পাগলা সমর্থক কিংবা সমাধি চুরি চক্রের হাত থেকে ফুটবল ঈশ্বর দিয়েগো ম্যারাডোনার মৃতদেহকে বাঁচাতে কঠোর পুলিশি পাহারা বসিয়েছে আর্জেন্টিনার অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা কর্তৃপক্ষ।

আর্জেন্টিনার বুয়েনস অ্যাইরেসের উপশহরে সমাধিস্থল ভেলা ভিস্তায় মা-বাবার পাশে শায়িত হন ম্যারাডোনা। সেখানেই এখন ২০০ সশস্ত্র পুলিশের পাহারার ব্যবস্থা করেছে আর্জেন্টিনা সরকার। খবরটি নিশ্চিত করেছে ব্রিটিশ মিডিয়া দ্য সান।

কর্তৃপক্ষের আশঙ্কা, অন্ধ সমর্থকরা ম্যারাডোনার সমাধি ভেঙে ফেলতে পারে। প্রিয় তারকাকে স্মৃতিচিহ্ন হিসেবে নিজের কাছে মমি করে রাখতে চুরি করতে পারে তার দেহ কিংবা দেহের কোনো অংশবিশেষ। এ কারণে অন্তত এক সপ্তাহ ভেলা ভিস্তা সমাধিস্থলকে কঠোর পাহারার মধ্যে রাখার ব্যবস্থা করেছে আর্জেন্টিনা কর্তৃপক্ষ।

ম্যারাডোনার সমাধিতে চুরির ব্যাপারে শঙ্কা তৈরির কারণও রয়েছে। ১৯৮৭ সালে সাবেক আর্জেন্টাইন প্রেসিডেন্ট হুয়ান পেরনের সমাধি ভেঙে তার দেহ চুরি করে নিয়ে গিয়েছিল কিছু অন্ধভক্ত। হুয়ান পেরন ছিলেন আর্জেন্টিনায় তুমুল জনপ্রিয় একজন প্রেসিডেন্ট। তার মৃত্যুতে শোকের ছায়া নেমে আসে আর্জেন্টিনাজুড়ে। তার শেষযাত্রায় ভক্তরা মাতম করতে শুরু করেন। ফুল আর চোখের পানিতে বিদায় দিয়েছিলেন তারা তাদের প্রিয় প্রেসিডেন্টকে। পরে দেখা গেল, কোনো এক অন্ধভক্ত প্রিয় প্রেসিডেন্টের দেহখানা চুরি করে নিয়ে গেছে।

যাবজ্জীবনের অর্থ ৩০ বছর কারাবাস

22

আইন ও আদালত : যাবজ্জীবন কারাদণ্ড মানে আমৃত্যু কারাবাস- আপিল বিভাগের এমন রায় ‘অসামঞ্জস্যপূর্ণ’ দাবি করে আসামি পক্ষের পুনর্বিবেচনার (রিভিউ) আবেদনের রায় ঘোষণা করা হয়েছে।

রায়ে বলা হয়, যাবজ্জীবন মানে ৩০ বছর কারাদণ্ড। তবে আদালত, ট্রাইব্যুনাল চাইলে আমৃত্যু কারাদণ্ড দিতে পারবেন। সে ক্ষেত্রে ৩০ বছরের বিধান প্রযোজ্য হবে না।

মঙ্গলবার (১ ডিসেম্বর) প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন সাত বিচারকের পূর্ণাঙ্গ আপিল এ রায় ঘোষণা করেন।

ভার্চুয়াল আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে যুক্ত ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল এএম আমিন উদ্দিন ও ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বিশ্বজিৎ দেবনাথ। আর আসামি পক্ষে খন্দকার মাহবুব হোসেন ও আইনজীবী শিশির মনির।

এর আগে গত মঙ্গলবার (২৪ নভেম্বর) প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন সাত বিচারপতির ভার্চুয়াল আপিল বেঞ্চ ১ ডিসেম্বর রায়ের দিন ধার্য করেন।

এ সময় আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে যুক্ত ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিন ও ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বিশ্বজিৎ দেবনাথ। আর অন্যপক্ষে ছিলেন আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন ও আইনজীবী শিশির মনির।

বিষয়টিতে রিভিউ আবেদনকারীর পক্ষের আইনজীবী শিশির মনির বলেন, ‘আপিল বিভাগ শর্ট অর্ডারে বলেছেন, বাংলাদেশের দণ্ডবিধি ও ফৌজদারি কার্যবিধি অনুযায়ী যাবজ্জীবন সাজার অর্থ হবে ত্রিশ বছর কারাদণ্ড। তবে কোনো নির্দিষ্ট আদালত বা ট্রাইব্যুনাল যদি কোনো ব্যক্তিকে আমৃত্যু কারাগারের আদেশ দিয়ে থাকেন সেক্ষেত্রে ওই ব্যক্তির জন্য কোনো রেয়াত বা বেনিফিট প্রযোজ্য হবে না। তাকে আমৃত্যুই কারাগারে থাকতে হবে। তবে সাধারণত যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের মেয়াদ হবে ত্রিশ বছর।’

গত বছরের ১১ জুলাই আপিল বেঞ্চ এই রিভিউ শুনানি শেষে বিষয়টি রায়ের জন্য অপেক্ষমাণ রাখেন। এ রিভিউ শুনানিতে আইনি মতামত তুলে ধরেন চার অ্যামিকাস কিউরি। তারা হলেন- ব্যারিস্টার রোকন উদ্দিন মাহমুদ, এ এফ হাসান আরিফ, অ্যাডভোকেট আবদুর রেজাক খান, মুনসুরুল হক চৌধুরী ও এ এম আমিন উদ্দিন।

প্রসঙ্গত ২০০১ সালে সাভারে জামান নামে এক ব্যক্তিকে গুলি করে হত্যা করা হয়। এ ঘটনায় ২০০৩ সালে তিনজনকে মৃত্যুদণ্ড দেন দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল। হাইকোর্টে আপিলের পর বিচারিক আদালতের দণ্ড বহাল থাকে।

এর বিরুদ্ধে আপিলের পর ২০১৭ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি আসামিদের মৃত্যুদণ্ড মওকুফ করে আমৃত্যু কারাদণ্ড দেন সর্বোচ্চ আদালত।

রায় ঘোষণার সময় আপিল বিভাগ ‘যাবজ্জীবন কারাদণ্ড মানে আমৃত্যু কারাবাস’ এমন মন্তব্য করেন। এর প্রতিবাদ জানান আসামিপক্ষের আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন।

তবে ওই দিন অন্যান্য মামলার আসামির ক্ষেত্রেও এ সিদ্ধান্ত প্রযোজ্য হবে কিনা সে বিষয়ে প্রয়াত অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বলেছিলেন, সবার ক্ষেত্রে এ রায় প্রযোজ্য হবে কিনা সেটি পূর্ণাঙ্গ রায় না হওয়া পর্যন্ত বলা যাবে না।

ওই দিন খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেছিলেন, রায়ের সময় প্রধান বিচারপতি বলেন, যাবজ্জীবন মানে আমৃত্যু (ন্যাচারাল লাইফ) কারাবাস। আমি প্রতিবাদ করে বলেছিলাম, দণ্ডবিধির ৫৭ ধারায় যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের অর্থ ৩০ বছর। এ ছাড়া যাবজ্জীবনের আসামিরা কারাগারে রেয়াত পেয়ে দণ্ড সাড়ে ২২ বছরে নেমে আসে। যদি আমৃত্যুই হয়ে থাকে, তা হলে তাদের রেয়াতের কি হবে? আমি আরও বলেছিলাম, প্রধান বিচারপতির এ মন্তব্য যেন মূল রায়ে না থাকে। তবে যদি থাকে, তা হলে সব আসামির ক্ষেত্রে এটি প্রযোজ্য হবে।

২০১৭ সালের ২৪ এপ্রিল সুপ্রিমকোর্টের ওয়েবসাইটে এ মামলার ৯২ পৃষ্ঠার পূর্ণাঙ্গ এ রায় প্রকাশিত হয়। পরে ২০১৭ সালের ৫ নভেম্বর আতাউর রহমান মৃধার আইনজীবী ওই রায়ের রিভিউর কথা সাংবাদিকদের জানান।

ভ্যাকসিনের দায়িত্ব সেনাবাহিনীকে দেওয়ার দাবি বিএনপির

109

নিজস্ব প্রতিবেদক : স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের ওপর অনাস্থা এনে কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন সংগ্রহ, সংরক্ষণ ও বিতরণের দায়িত্ব সেনাবাহিনীকে দেওয়ার দাবি জানিয়েছে বিএনপি।

সোমবার (৩০ নভেম্বর) দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।

এতে বলা হয়, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অযোগ্যতার কারণে জীবন রক্ষাকারী ভ্যাকসিন সংগ্রহ কার্যক্রম ব্যাহত হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। স্থায়ী কমিটির সভা মনে করে ভ্যাকসিন সংগ্রহ, সংরক্ষণ ও বিতরণের বাস্তবসম্মত পরিকল্পনা গ্রহণ করতে না পারলে জনগণ উপকৃত হবে না। বরং ব্যাপক দুর্নীতির সুযোগ সৃষ্টি করবে।

‘বর্তমান দুর্নীতিগ্রস্ত স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও সংশ্লিষ্ট দপ্তরের পক্ষে এই ব্যাপক কর্মযজ্ঞ সুষ্ঠুভাবে পালন করা সম্ভব নয় বলে এই কাজে সশস্ত্র বাহিনী ও অন্যান্য সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলোকে দায়িত্ব প্রদান করা উচিত। বেশ কয়েকটি উন্নত দেশেও সশস্ত্র বাহিনীকে এই কাজে লাগানো হয়েছে।’

বিএনপির স্থায়ী কমিটি টিকা সংগ্রহ, সংরক্ষন ও বিতরণের পুরো পরিকল্পনা জনগণের সামনে উপস্থাপন করতে সরকারের প্রতি দাবি জানিয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, প্রায় ১৬ কোটি মানুষের জন্য ৩২ কোটি ভ্যাকসিনের ডোজ প্রয়োজন হবে। কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন ইতিমধ্যেই কয়েকটি দেশে চূড়ান্ত পর্যায়ে উপনীত হয়েছে। অনেক দেশের সরকার ভ্যাকসিন সংগ্রহের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে শুরু করেছে। দুর্ভাগ্যজনকভাবে বাংলাদেশের দায়িত্বহীন সরকার এ বিষয়ে কী ব্যবস্থা গ্রহণ করছে, তা স্পষ্টভাবে জনগণের সামনে তুলে ধরছে না। বিভিন্ন দায়িত্বশীল ব্যক্তিবর্গ বিভ্রান্তিমূলক তথ্য তুলে ধরছে।

রবিবার বিকালে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সভাপতিত্বে স্থায়ী কমিটির এই ভার্চুয়াল বৈঠক হয়।

বৈঠকে মহাসচিব ফখরুল ছাড়াও খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মওদুদ আহমেদ, জমির উদ্দিন সরকার, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, আবদুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, সেলিমা রহমান ও ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু উপস্থিত ছিলেন।

বরিশালের হারে আফিফ ও নিজের ব্যর্থতা দেখছেন তামিম

3

স্পোর্টস ডেস্ক : টুর্নামেন্ট শুরুর আগে দল নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেছিলেন তামিম ইকবাল। তবুও ভালো কিছুর আশায় শুরু করেন বঙ্গবন্ধু টি-টুয়েন্টি কাপ। প্রথম ম্যাচ জয়ের দাঁড়প্রান্তে দাঁড়িয়েও শেষ ওভারে হারতে হয়েছিল ফরচুন বরিশালকে।

দ্বিতীয় ম্যাচে জয়ের দেখা পেলেও তৃতীয় ম্যাচে এসে আবারও হারতে হয়েছে ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতায়। এজন্য নিজের সঙ্গে আফিফ হোসেনের দায়িত্ব পালনের ব্যর্থতার দিকটি সামনে আনলেন বরিশাল অধিনায়ক।

সোমবার (৩০ নভেম্বর) গাজী গ্রুপ চট্টগ্রামের বিপক্ষে ভালো অবস্থায় থেকে দুই সেট ব্যাটসম্যানের আউট হওয়া ভালো চোখে দেখছেন না তামিম। একজন তিনি নিজে, ৩২ বলে ৩২ রান করে আউট হয়েছেন। অন্যজন জাতীয় দলের জার্সিতে বেশ কিছু ম্যাচ খেলার অভিজ্ঞতা থাকা আফিফ, যিনি ২২ বলে ২৪ রান করে ফেরেন প্যাভিলিয়নে।

ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে তামিম বলেছেন, ‘আমরা দুজনই অভিজ্ঞ, আমাদের দায়িত্ব নেওয়া উচিত ছিল। টি-টোয়েন্টিতে ২০-৩০ রানে আউট হয়ে যাওয়া পাপের মতো। কারণ আমরা যথেষ্ট বল খেলতে পেরেছি, উইকেটের আচরণ যাচাই করতে পেরেছি। আমি আর আফিফ যেহেতু উইকেটে অনেকক্ষণ থেকেছি, আমাদের অন্তত একজনের উচিত ছিল ম্যাচ শেষ করে আসা। ওই দুই উইকেটই পার্থক্য গড়ে দিয়েছে। ওই সময়ে ভালো ব্যাট করলে ম্যাচ আমাদের নিয়ন্ত্রণে থাকতো। হৃদয় আর ইরফানের উইকেট বেশি মূল্যবান ছিল, কারণ তখনও আমরা ম্যাচে টিকে ছিলাম।’

গাজী গ্রুপ চট্টগ্রাম আগে ব্যাটিং করে ১৫১ রান করেছিল। তামিম মনে করেন, ১৫ রান বেশি দিয়েছেন তারা, ‘তারা (চট্টগ্রাম) ব্যাট হাতে ভালো শুরু করেছিল, এরপর আমরাও ম্যাচে ফিরেছিলাম। উইকেট ব্যাটিংয়ের জন্য এতো ভালো ছিল না। তারপরও আমরা ১৫ রানের মতো অতিরিক্ত দিয়ে ফেলেছি।’

১৯তম ওভারে আবু জায়েদ রাহীকে তিন ছক্কা হজম করতে হয়। রাহীকে কাঠগড়ায় দাঁড় না করালেও তামিম মনে করেন, ‘আমরা গুরুত্বপূর্ণ সময়ে একটি ক্যাচ হাতছাড়া করেছি। এক ওভারে তিনটি ছক্কা হজম করতে হয়েছে। তবে খেলোয়াড়দের দোষ দেওয়ার কিছু নেই, এটা খেলারই অংশ। ব্যাট হাতে আমরাও ভালো শুরু পেয়েছিলাম। কিন্তু একপর্যায়ে উইকেট হারাতে থাকি।’

তিন ম্যাচ শেষে এক জয় বরিশালের পাশে। ফলের দিকে না তাকিয়ে সতীর্থদের খেলাটাকে উপভোগ করার পরামর্শ বাংলাদেশের ওয়ানডে অধিনায়কের, ‘মূল বিষয় হলো, আমরা খেলা উপভোগ করছি কিনা। ফল বড় কথা নয়। প্রথম ম্যাচ অনেক রোমাঞ্চকর ছিল। পরের ম্যাচে ঘুরে দাঁড়িয়েছি। আজকে আবার হারলাম। আমরা এই ম্যাচ থেকে কিছু শিক্ষা নিতে পারি। কারণ জয় কখনোই অসম্ভব ছিল না।’

অসুস্থতা নিয়েই ভারতের টুঁটি চেপে ধরেছেন স্মিথ

13

স্পোর্টস ডেস্ক : সফরকারী ভারতের টুঁটি চেপে ধরে তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজের প্রথম দুই ম্যাচ জিতে সিরিজ নিজেদের করে নিছে অস্ট্রেলিয়া। টানা দুই ম্যাচে কাকতালীয়ভাবে ৬২ বলে সেঞ্চুরি করেছেন অস্ট্রেলিয়ার জয়ের নায়ক স্টিভেন স্মিথ।

রবিবার (২৯ নভেম্বর) শারীরিক ভাবে অসুস্থ হয়ে পড়ার কথা তার। সিডনিতে দ্বিতীয় ওয়ান ডে ম্যাচের দিন সকালে তার মাথা ঘোরার সমস্যা শুরু হয়। অনেকটা সময় তখন শরীর ভাল লাগছিল না। খেলতে পারবেন কি না সে ব্যাপারে ছিলেন অনিশ্চিত।

ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়াকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে ভারতের বিরুদ্ধে পর পর দুই ম্যাচে সেরার সম্মান পাওয়া স্মিথ বলেছেন, ‘খুব মাথা ঘুরছিল। এক সময় মনে হচ্ছিল খেলতেই পারব না।’ পরিস্থিতি বেগতিক হতে পারে দেখে অস্ট্রেলীয় ক্রিকেট দলের চিকিৎসক লে গোল্ডিংকে ডাকা হয়। তিনি স্মিথকে সুস্থ করে তুলনে কার্যকরী ভূমিকা রাখেন।

অস্ট্রেলীয়ান তারকা বলেছেন, ‘দলের চিকিৎসকই সুস্থ করে তোলেন আমাকে। যার ফলে ভারতের বিরুদ্ধে আরও একটি ভাল ইনিংস খেলে দলকে সাহায্য করতে পেরেছি।’

রবিবারেই সিরিজ ২-০ জিতে যাওয়ায় বুধবার শেষ ওয়ানডেতে ভারতের বিরুদ্ধে নিয়মরক্ষার ম্যাচে খেলতে নামছে অস্ট্রেলিয়া। শুক্রবার থেকে শুরু হবে টি-টুয়েন্টি সিরিজ। ১৭ ডিসেম্বর থেকে অ্যাডিলেডে শুরু হবে চার ম্যাচের টেস্ট সিরিজ।

সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সরকারের জরুরি নির্দেশনা

0

নিজস্ব প্রতিবেদক : দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবং শিক্ষা সংশ্লিষ্ট দপ্তরগুলোকে আগামী ১৪ ডিসেম্বর শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস পালনের জন্য নির্দেশ দিয়েছে সরকার।

এ দিন দেশের সব স্কুল, কলেজ, মাদরাসা, কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে দিবসটি যথাযথ মর্যাদায় পালন করতে বলা হয়েছে। দিবসটির ইতিহাস ও তাৎপর্য তুলে ধরতে এ দিন অনলাইনে বা যেখানে সম্ভব স্বাস্থ্যবিধি মেনে আলোচনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করতে হবে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোকে। এছাড়া দিবসটির সাথে সংশ্লিষ্ট বিষয়ে শিক্ষার্থীদের নিয়ে রচনা প্রতিযোগিতা আয়োজনের পরামর্শও দেওয়া হয়েছে।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশত বার্ষিকী উদযাপন বাস্তবায়ন কমিটি শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস পালনে এসব সুপারিশ করেছে। তা আমলে নিয়ে সব স্কুল-কলেজে দিবসটি উদযাপনে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি)। একই সাথে প্রতিষ্ঠানগুলোকে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়ে ১০০ দিনের কুইজ প্রতিযোগিতা শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণের ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে।

জানা গেছে, এসব সুপারিশ করে বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকী উদযাপন বাস্তবায়ন কমিটি মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর, মাদরাসা শিক্ষা অধিদপ্তর, কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তর, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় ও বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনে চিঠি পাঠিয়েছিল। এতে ১৪ ডিসেম্বর শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস পালনে সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে নির্দেশনা দিতে বলা হয়।

চিঠিতে আরও বলা হয়েছে, এ দিবসের ইতিহাস ও তাৎপর্য তুলে ধরার জন্য এদিন অনলাইনে বা যেখানে সম্ভব স্বাস্থ্যবিধি মেনে আলোচনা অনুষ্ঠানের আয়োজনের জন্য বিশেষভাবে অনুরোধ করা হল। শিক্ষার্থীদের মধ্যে দিবসটির তাৎপর্য তুলে ধরে সংশ্লিষ্ট বিষয়ে রচনা প্রতিযোগিতার আয়োজন করা যেতে পারে।

চিঠিতে আরও বলা হয়, মুজিববর্ষ উদযাপনের উপলক্ষে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়ে ১০০ দিনের কুইজ প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়েছে। শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের সহায়তায় আগামী ১ ডিসেম্বর থেকে ২০২১ খ্রিষ্টাব্দের ১০ মার্চ পর্যন্ত অনলাইনে এ কুইজ প্রতিযোগিতা চলবে। প্রতিযোগিতায় প্রতিদিন লটারির মাধ্যমে মোট ১০০ জনকে পুরস্কৃত করা হবে। এছাড়া প্রতিযোগিতার সমাপনী দিনে সব অংশগ্রহণকারীদের ১০০টি ল্যাপটপ পুরস্কার হিসেবে দেয়া হবে। অনলাইন এ কুইজ প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণের ও সার্বিক সহযোগিতা করতে চিঠিতে বলা হয়েছে।

অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকী উদযাপন বাস্তবায়ন কমিটির চিঠিটি সব সরকারি বেসরকারি স্কুল-কলেজে পাঠানো হয়েছে। চিঠির নির্দেশনা অনুযায়ী ব্যবস্থা নিয়ে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো ও মাঠ পর্যায়ের শিক্ষা কর্মকর্তাদের বলা হয়েছে।

মহান মুক্তিযুদ্ধের নয় মাস পাকিস্তান সেনাবাহিনী ও তাদের এদেশীয় দোসরেরা দেশের মানুষের ওপর নৃশংস গণহত্যা চালিয়েছে। কিন্তু সে নয় মাসের নৃশংসতা ছাপিয়ে গেছে বিজয়ের প্রাক্কালে ১৪ ডিসেম্বর দেশের শ্রেষ্ঠ সন্তানদের হত্যা করা। পাকিস্তান সেনাবাহিনী এবং রাজাকার, আলবদর ও আলশামস বাহিনীর সদস্যরা এদিন রাতের অন্ধকারে লেখক-বুদ্ধিজীবী-শিক্ষাবিদ-চিকিৎসক-সাংবাদিক-প্রকৌশলীদের ধরে নিয়ে হত্যা করে। তাই, ১৪ ডিসেম্বর শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস পালনের মাধ্যমে জাতি সেই মহান সন্তানদের স্মরণ করে।

রিয়ালের দুঃস্বপ্নের সন্ধ্যায় হ্যাজার্ডের চোট

568

স্পোর্টস ডেস্ক : আলাভেজের কাছে ২-১ গোলে হারের পাশে এডেন হ্যাজার্ডের চোট। নিজেদের মাঠে গত শনিবারের সন্ধ্যাটা দুঃস্বপ্নের মতোই কেটেছে রিয়াল মাদ্রিদের। ম্যাচের ২৮ মিনিটের সময় পায়ে চোট পেয়ে উঠে যেতে হয়েছিল হ্যাজার্ডকে। চোটটা যে খুব সাধারণ নয় সেটি বুঝতে পেরেছিলেন বেলজিয়ান উইঙ্গার।

রবিবার (২৯ নভেম্বর) আলট্রাসাউন্ড পরীক্ষায় সেরকম কিছু ধরা পড়েনি। তাই সোমবার (৩০ নভেম্বর) এমআরআই স্ক্যান করা হয়। তাতেই ধরা পড়েছে ডান উরুর রেকটাস ফেমোরিস পেশিতে চোট। এ থেকে সেরে উঠতে কম করে হলেও তিন সপ্তাহ সময় লাগবে। ২০১৯ সালের গ্রীষ্মে চেলসি থেকে রিয়ালে সাইন করার পর এই নিয়ে সাতবার চোটে পড়লেন হ্যাজার্ড।

এই চোটের কারণে চ্যাম্পিয়নস লিগ ও লা লিগা মিলিয়ে চারটি ম্যাচ তাকে ঘরে বসে দেখতে হবে দর্শকের চোখে। এই ম্যাচগুলো হলো চ্যাম্পিয়নস লিগে শাখতার দোনেৎস্কের সঙ্গে মঙ্গলবার (অ্যাওয়ে), শনিবার লা লিগায় সেভিয়ার সঙ্গে (অ্যাওয়ে), ৯ ডিসেম্বর বরুসিয়া ম’গ্ল্যাডবাখের সঙ্গে এবং আতলেতিকো মাদ্রিদের সঙ্গে ১২ ডিসেম্বর।

এই চার ম্যাচে হ্যাজার্ডকে না পাওয়ায় বড় মাশুল গুনতে হতে পারে স্পেনের চ্যাম্পিয়ন ও চ্যাম্পিয়নস লিগে ১৩ বারের শিরোপাজয়ীদের। কারণ এই চোটে পড়ার আগে তার দুর্দান্ত পারফরম্যান্সে রিয়াল হারিয়েছে ভিয়ারিয়াল ও ইন্টারমিলানকে। টানা তৃতীয় ম্যাচে প্রথম একাদশে নেমে অ্যালাভেজের সঙ্গেও শুরুটা করেছিলেন দারুণ। কিন্তু কে জানতো এ ম্যাচেই আবার দুষ্টগ্রহের মতো তাকে পেয়ে বসবে চোট!

বেলজিয়াম জাতীয় ফুটবল দলের প্রধান চিকিৎসক ডা. ক্রিস ফন ক্রমব্রুজের মতে বারবার চোটে পড়ে যে মানসিক ধকল যাচ্ছে হ্যাজার্ডের, সেটাই আবার নতুন করে তার চোটে পড়ার কারণ হচ্ছে।

Dhaka, BD
haze
25 ° C
25 °
25 °
65 %
1.7kmh
0 %
শুক্র
23 °
শনি
28 °
রবি
28 °
সোম
28 °
মঙ্গল
27 °

সর্বাধিক পঠিত