28 C
Dhaka, BD
Home Blog Page 2

মুফতি ইব্রাহীমকে ১০ দিনের রিমান্ডে চায় ডিবি

0

বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মিথ্যা ও উস্কানিমূলক বক্তব্য দেওয়ার অভিযোগে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে দায়ের করা মামলায় মুফতি কাজী ইব্রাহীমকে ১০ দিনের রিমান্ডে চায় মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)।

বুধবার (২৯ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর মোহাম্মদপুর থানায় দায়ের করা ওই মামলায় রিমান্ড চেয়ে গ্রেফতার মুফতি ইব্রাহীমকে আদালকে পাঠানো হয়েছে।

ডিবির সিরিয়াস ক্রাইম ইনভেস্টিগেশন বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) শরিফুল ইসলাম জানান, মোহাম্মদপুর থানায় দায়ের করা ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় তাকে আদালতে পাঠানো হয়েছে। তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আদালতে সোপর্দ করে ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করা হবে।

এর আগে ডিবির এক কর্মকর্তা বাদী হয়ে মোহাম্মদপুর থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলাটি দায়ের করেন।

মোহাম্মদপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আব্দুল লতিফ জানান, ইউটিউব, ফেসবুকসহ বিভিন্ন মাধ্যম ব্যবহার করে নানান বক্তব্য দিয়ে সমালোচিত মুফতি কাজী ইব্রাহীমের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

এর আগে মঙ্গলবার (২৮ সেপ্টেম্বর) রাতে জেড এম রানা নামে একজন বাদী হয়ে প্রতারণার অভিযোগে মুফতি ইব্রাহিমের বিরুদ্ধে আরেকটি মামলা দায়ের করেন।

ডিবির যুগ্ম-কমিশনার হারুন-অর-রশিদ বলেন, মুফতি ইব্রাহীম করোনা নিয়ে মিথ্যা তথ্য প্রচার করছেন। সম্প্রতি করোনা ভাইরাসের টিকা নিয়ে তার বিভিন্ন বক্তব্য ভাইরাল হয়। মুফতি ইব্রাহীম ফেসবুক, ইউটিউবসহ তার ওয়াজে উল্টা-পাল্টা কথা বলে আসছেন।

সোমবার (২৭ সেপ্টেম্বর) রাতেও ফেইসবুক লাইভে তিনি বাংলাদেশের মানুষকে হিন্দুস্থানের দালাল ও র-এর এজেন্ট বলে প্রচার করেছেন। তিনি বিভিন্ন সময়ে করোনা নিয়ে মিথ্যা তথ্য প্রচার ও ধর্মীয় উস্কানিমূলক বক্তব্য প্রচার করেছেন। যা নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা, বিতর্ক হচ্ছে। সেসব বিষয়ে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করতে হেফাজতে নেওয়া হয়।

নানা ধরনের বক্তব্যে সমালোচিত মুফতি কাজী ইব্রাহীমকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সোমবার (২৭ সেপ্টেম্বর) দিনগত রাতে রাজধানীর লালমাটিয়ার বাসা থেকে আটক করে মহানগর গোযেন্দা পুলিশ (ডিবি)।

বাসায় ডিবি পুলিশের অভিযানের সময় ফেসবুক লাইভে এসে র-এর এজেন্ট, গুণ্ডা ডিবি পুলিশ তার বাসা ঘেরাও করেছে বলে অভিযোগ তোলে লাইভে কথা বলেন মুফতি কাজী ইব্রাহীম।

চলন্ত ট্রেনে ঢিল, ভ্রাম্যমাণ হকার আহত

0

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ঢাকা-চট্টগ্রাম-সিলেট রেলপথের পাঘাচং স্টেশন এলাকায় তিতাস কমিউটার ট্রেনে ছোড়া ঢিলে জসিম উদ্দিন (৪০) নামে এক ভ্রাম্যমাণ বিক্রেতা আহত হয়েছেন।

মঙ্গলবার (২৮ সেপ্টেম্বর) রাত পৌনে ১০টায় ওই স্টেশন এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। আহত ওই হকারকে রাতেই প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে বাড়িতে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে।

জানা যায়, মঙ্গলবার (২৮ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় ঢাকা থেকে আখাউড়ার উদ্দেশ্যে তিতাস কমিউটার ট্রেনটি ছেড়ে আসে। পরে রাত সাড়ে ৯টার দিকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার পাঘাচং স্টেশনে ঢোকার সময় ট্রেনের ইঞ্জিনের পেছনে দুই নম্বর বগি লক্ষ্য করে বাইরে থেকে ঢিল ছোড়া হয়। এতে জানালার পাশে বসে থাকা হকার জসিম আহত হন। এ সময় তাকে আখাউড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়।

রেলওয়ে পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাজহারুল করিম জানান, এ সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়। ওই আহত হকার প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি ফিরে গেছেন। ট্রেনে ঢিল ছোড়ার বিষয়ে সচেতনতা সৃষ্টি করতে সবার সহযোগিতা প্রয়োজন।

এবার ধামাকার সিওও রানাসহ গ্রেপ্তার ৩

1883

ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ইভ্যালির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) মো. রাসেল ও তার স্ত্রী প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান শামীমা নাসরিনকে গ্রেপ্তারে কিছুদিন পরেই প্রতারণা ও অর্থ-আত্মসাতের অভিযোগে গ্রেপ্তার হলেন ধামাকা শপিং এর সিওও সিরাজুল ইসলাম রানা। তার সঙ্গে গ্রেপ্তার করা হয়েছে আরও ২ জনকে। গাজীপুরের টংগী পশ্চিম থানায় এক গ্রাহকের দায়েরকৃত মামলায় তাদের গ্রেপ্তার করে র‌্যাব।

আজ বুধবার (২৯ সেপ্টেম্বর) র‌্যাব মিডিয়া সেন্টার থেকে জানানো হয়, ধামাকা শপিং এর সিওও সিরাজুল ইসলাম রানার গ্রেপ্তার সংক্রান্তে আজই দুপুর ১২ টায় সংবাদ সম্মেলন করে বিস্তারিত জানানো হবে। র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখা পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন এ বিষয়ে ব্রিফিং করবেন।

টাকা নিয়ে পণ্য সরবরাহ না করায় ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ধামাকার চেয়ারম্যান ও পরিচালকসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে টঙ্গী পশ্চিম থানায় মামলা দায়ের করেছিলেন এক ব্যবসায়ী। গত বৃহস্পতিবার (২৩ সেপ্টেম্বর) মামলাটি দায়ের করেন টঙ্গী পশ্চিম থানার উত্তর আউচপাড়া এলাকার বাসিন্দা মো. শামীম খান। তিনি একজন পোশাক কারখানার পার্টস ব্যবসায়ী বলে জানা গেছে।

ওই মামলার বিবাদীরা হলেন, প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক এসএমডি জসিমউদ্দিন চিশতী (৫৭), চেয়ারম্যান ডা. এম আলী ওরফে মোজতবা আলী (৬০), সিওও সিরাজুল ইসলাম রানা, প্রধান ব্যবসা কর্মকর্তা ডিএমডি দেবকর দে শুভ (৩২), নাজিম উদ্দিন আসিফ (২৮), এজিএম হেড অব একাউন্টস সাফোয়ান আহমেদ (৪১), ডেপুটি ম্যানেজার আমিরুল হোসাইন (৪৬), আসিফ চিশতী (২৬), সিস্টেম ক্যাটাগরি হেড ইমতিয়াজ হাসান (৩৫), ভাইস প্রেসিডেন্ট ইব্রাহীম স্বপন (৩৫) ও উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক নিরোধ বারান রয় (৪৫)।

মামলার বাদী মো. শামীম খান জানান, গত ২০ মার্চ অনলাইনে ইনভ্যারিয়েন্ট টেলিকম বাংলাদেশ লিমিটেড পরিচালিত ধামাকা শপিং ডটকমের ফেসবুক পেজে বিভিন্ন ভার্চুয়াল সিগনেচার কার্ডের মাধ্যমে পণ্য কেনার অফার দেয়। অনলাইনে অফারটি দেখে প্রতিষ্ঠানের হেল্পলাইনে যোগাযোগ করেন তিনি। যোগাযোগ করার পর তাকে জানানো হয়, পণ্য অর্ডার করলে ৪৫ দিনের মধ্যে পণ্য সরবরাহ করা হবে। সে অনুযায়ী ৮৪টি ইনভয়েসের মাধ্যমে ওই প্রতিষ্ঠানের নির্ধারিত ইনভয়েসে ১১ লাখ ৫৫ হাজার টাকা পরিশোধ করেন তিনি। প্রতিষ্ঠানটি তার অর্ডার কনফার্ম করে ও কনফার্ম ইনভয়েস জিমেইল আইডিতে পাঠায়। কিন্তু প্রতিষ্ঠান থেকে নির্ধারিত ৪৫ দিনেও পণ্য সরবরাহ করেনি। ৫০ দিন পর হেল্পলাইনে যোগাযোগ করলে অপেক্ষা করতে বলে। এক মাস অপেক্ষা করার পর তাদের প্রতিষ্ঠানের ম্যানেজিং ডিরেক্টর ও ডিরেক্টর অপারেশন কর্তৃক স্বাক্ষরিত তাকে সাউথ ইস্ট ব্যাংকের মাধ্যমে ১১ লাখ ৫৫ হাজার টাকার দুইটি চেক দেওয়া হয়। ওই চেক নিয়ে টাকা তুলতে গেলে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ জানায় একাউন্টে কোনো টাকা নেই।

তিনি আরও জানান, গত ৫ আগস্ট প্রতিষ্ঠানের সিও মামলার ৩নং আসামি মো. সিরাজুল ইসলামের কাছে যাওয়ার পর তিনি টাকা না দিয়ে তাকে হুমকি দেন। পরে ৫ সেপ্টেম্বর বেলা সাড়ে ১১টার দিকে অফিসে গিয়ে দেখেন অফিস তালাবন্ধ। তিনি বুঝতে পারেন তার সঙ্গে প্রতারণা করা হয়েছে। তাই টাকা পরিশোধের ইনভয়েজ, ব্যাংকের চেকের ফটোকপিসহ প্রয়োজনীয় কাগজ-পত্র সংগ্রহ করে মামলা করেন।

উল্লেখ্য, চমকপ্রদ বিজ্ঞাপন ও আকর্ষণীয় ছাড়ে পণ্য বিক্রির ফাঁদ তৈরি করে গ্রাহকদের কাছ থেকে প্রায় ৫৮৯ কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। এরই মধ্যে প্রতিষ্ঠানের ম্যানেজিং ডিরেক্টর (এমডি) জসিমউদ্দিন চিশতি যুক্তরাষ্ট্রে পাড়ি জমিয়েছেন। এছাড়া পরিচালনা পর্ষদের বেশির ভাগ সদস্য পালিয়ে বিদেশে চলে গেছেন বলে জানিয়েছে অপরাধ তদন্ত সংস্থা (সিআইডি)।

রাজধানীর মহাখালীতে অবস্থিত প্রতিষ্ঠানটির অফিস বর্তমানে বন্ধ রয়েছে। বন্ধ রয়েছে কাস্টমার কেয়ার সেন্টারের ফোন নম্বরও। এ অবস্থায় দুশ্চিন্তায় পড়েছেন ধামাকায় অর্ডার পেমেন্ট করা হাজারো গ্রাহক।

কুষ্টিয়ার খোকসায় সাহায্য চাইতে এসে মৃত মহিলার পরিচয় মিলেছে

272

কুষ্টিয়ার খোকসা মোড়াগাছা এ কতজন মৃত্যুবরণ করা মহিলার সন্ধান পাওয়া গেছে। মৃত অজ্ঞাত মহিলা খুলনা জেলার ফুলবাড়িয়া গেটের স্বামীর দুলাল হাওলাদারের স্ত্রী মিলি বেগম (৬৫)।

জানাগেছে গত শুক্রবার খুলনা থেকে নাতনী হাবিবা খাতুন (২৩) এর বাড়ি কুষ্টিয়া জেলার কুমারখালী পৌরসভার তেবাড়িয়া গ্রামের বেড়াতে এসেছিলেন।

মঙ্গলবার সকালে বাসা থেকে বের হয়ে পথভুলে খোকসা উপজেলার মোড়াগাছা মাস্টার বাড়িতে সাহায্যের জন্য আসে। এ সময় তিনি বুকে ব্যাথা অনুভব করে। পরে ঘটনাস্থলেই মৃত্যুর কোলে ঢুলে পড়েন।
পরে খোকসা থানার পুলিশ লাশ উদ্ধার করে কুষ্টিয়া হাসপাতালে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠায়। সন্ধ্যা ৭ টার সময় গণমাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের মধ্য দিয়ে জানতে পেরে মৃত মহিলার নাতনি হাবিবা খাতুন ছুটে আসেন খোকসা থানা।

মৃত লাশটি দেখে ওই নাতনি তার নানী বলে শনাক্ত করেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন খোকসা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি সৈয়দ মোঃ আশিকুর রহমান। তিনি আরো বলেন তার নানী দীর্ঘদিন যাবত উচ্চ রক্তচাপ ডায়াবেটিস ও নানাবিধ রোগে ভুগছিলেন। ময়না তদন্ত করার পর লিলি বেগমের এর মরদেহ নাতনি হাবিবা খাতুন এর কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে অসুস্থ গরুর মাংস খেয়ে অ্যানথ্রাক্স বা তড়কা রোগে শিশুসহ আক্রান্ত ১০ জন

369

কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে অসুস্থ গরুর মাংস খেয়ে অ্যানথ্রাক্স বা তড়কা রোগে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে শিশুসহ অন্তত ১০জন। আক্রান্তরা নিজ নিজ বাড়িতেই চিকিৎসা নিচ্ছেন বলে জানা গেছে। তবে এ রোগীর সংখ্যা প্রতিদিনই বাড়ছে বলে স্থানীয়রা জানিয়েছেন।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, দৌলতপুর উপজেলার প্রাগপুর ইউনিয়নের গোপালপুর গ্রামে ৮ দিন আগে রহিম হোসেনের একটি অসুস্থ গরু জবাই করে স্থানীয়দের মাঝে মাংস বিক্রয় করা হয়। ওই গরুর মাংস খাওয়ার পর ফকির মন্ডলের ছেলে সজিব (২৫), সিরাজুল ইসলামের ছেলে নমাজ (২৮), নয়ন আলীর ছেলে রমজান আলী (৪৮) মতিয়ার রহমানের স্ত্রী সুফিয়া খাতুন (৪৫), মনিরুল ইসলামের স্ত্রী সুজিনা খাতুন (৪০), মৃত শাহ মোহাম্মদের ছেলে বাবুল হোসেন (৬৭) ও ডাবলুর শিশু ছেলে সাব্বির (১৩) সহ অনন্ত ১০জন অসুস্থ হয়ে পড়ে। অসুস্থ অবস্থায় তাদের হাতসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে ক্ষত বা ঘা দেখা দেয়। আক্রান্তরা স্থানীয় চিকিৎসকের কাছে গেলে তারা নিশ্চিত করেন এটা অ্যানথ্রাক্স বা তড়কা রোগ। পরে তারা স্থানীয় চিকিৎসকদের দেওয়া চিকিৎসা নিয়ে নিজ নিজ বাড়িতেই রয়েছেন বলে আক্রান্ত পরিবারের লোকজন জানিয়েছেন। এদিকে প্রতিদিনই এ রোগে আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় এলাকাবাসীর মাঝে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে।

এ বিষয়ে দৌলতপুর উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ মো. আব্দুল মালেক জানান, উপজেলার প্রাগপুর ইউনিয়নের গোপালপুর গ্রামে কিছু গরু তড়কা রোগে আক্রান্ত হওয়ার সংবাদ পেয়ে গত সপ্তাহ থেকে ওই এলাকার পশুগুলোকে ধারাবাহিকভাবে প্রতিষেধক বা ভ্যাকসিন দেওয়া হচ্ছে।

আক্রান্ত পশুর স্যাম্পল ল্যাবটেষ্টের জন্য ঢাকায় পাঠানো হয়েছে। একইসাথে এ রোগ যাতে বিস্তার না ঘটে সে ব্যবস্থাও নেওয়া হচ্ছে। কেউ আক্রান্ত হলে তাৎক্ষনিকভাবে চিকিৎসকের স্মরনাপন্ন হওয়ার পরামর্শ দেন ডাঃ আব্দুল মালেক।

কুষ্টিয়া পৌরসভার নির্বাহী প্রকৌশলী রবিউল ইসলাম ও সার্ভেয়ার আব্দুল মান্নান সহ তাদের স্ত্রীর বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

55

অবৈধ সম্পদ অর্জন ও মানিলন্ডারিং এর অভিযোগে কুষ্টিয়া পৌরসভার নির্বাহী প্রকৌশলী রবিউল ইসলাম ও তার স্ত্রী মোছা: কারুন্নাহার এবং কুষ্টিয়া পৌরসভার সার্ভেয়ার আব্দুল মান্নান এর স্ত্রী মোছা: রুপালী খাতুন এর নামে পৃথক দুইটি মামলা দায়ের করেছে দূর্ণীতি দমন কমিশন সমন্বিত জেলা কার্যালয় কুষ্টিয়া।

তাদের বিরুদ্ধে সম্পদ বিবরণীতে মিথ্যা তথ্য ও আয়ের সঙ্গে অসংগতিপূর্ণ অর্থ অর্জনের অভিযোগ আনা হয়েছে।

দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) সমন্বিত জেলা কার্যালয়, কুষ্টিয়ার উপ-সহকারী পরিচালক নীল কমল পাল বাদী হয়ে মঙ্গলবার দুপুরে মামলা দুটি করেন।

এতে দুর্নীতি দমন কমিশন আইন ২০০৪ এর ২৮(২) ও ২৭(১) ধারা এবং মানিলন্ডারিং প্রতিরোধ আইন ২০১২ এর ৪(২) ও ৪(৩) ধারা ও দন্ডবিধির ১০৯ ধারায় অভিযোগ আনা হয়েছে।

দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) সমন্বিত জেলা কার্যালয়, কুষ্টিয়ার উপ-পরিচালক মো. জাকারিয়া স্পেশাল নিউজকে মামলা দায়েরের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, মামলার অভিযোগের বিষয়ে পূর্ণ তদন্ত হবে।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, দুর্নীতি দমন কমিশনের সম্পদ বিবরণীতে কুষ্টিয়া পৌরসভার নির্বাহী প্রকৌশলী রবিউল ইসলাম ৩৬ লক্ষ ২ হাজার ৬৪১ টাকা ৩০ পয়সা সম্পদের ভিত্তিহীন বা মিথ্যা তথ্য প্রদান করেছেন। জ্ঞাত আয়ের সাথে অসঙ্গতিপূর্ণ ৫২ লাখ ১৯ হাজার ৫৭৩ টাকা ২৯ পয়সা সম্পদ অর্জন ও দখলে রাখাসহ হস্তান্তর/রুপান্তর/স্থানান্তর করার অপরাধ করেছেন। অন্যদিকে তাঁর স্ত্রী মোছা: কামরুন্নাহার তাঁর স্বামীর অবৈধ অর্থকে বৈধ করার কাজে সহায়তা প্রদান করেছেন। একইভাবে কুষ্টিয়া পৌরসভার সার্ভেয়ার মো: আব্দুল মান্নানের স্ত্রী মোছা রুপালী খাতুন তাঁর দাখিলকৃত সম্পদ বিবরণীতে ৫২ লক্ষ ৭৩ হাজার ১৯৩ টাকা ৮৫ পয়সা সম্পদের ভিত্তিহীন বা মিথ্যা তথ্য প্রদান করেছেন। জ্ঞাত আয়ের সাথে অসঙ্গতিপূণ ৭২ লক্ষ ৩২ হাজার ২৪৮ টাকা ৮০ পয়সা সম্পদ অর্জন ও দখলে রাখাসহ হস্তান্তর/রুপান্তর/স্থানান্তর করার অপরাধ করেছেন।

বিদেশ যেতে নিষেধাজ্ঞা: আপিলে দুদকের আবেদনের নিষ্পত্তি

1

সুনির্দিষ্ট বিধি বা আইন প্রণয়ন না করা পর্যন্ত দুর্নীতি মামলার আসামি বা সন্দেহভাজন কোনো ব্যক্তির বিদেশ যাওয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা নিয়ে দুদকের আবেদন পর্যবেক্ষণসহ নিষ্পত্তি করেছেন আপিল বিভাগ।

প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন আপিল বেঞ্চ হাইকোর্টের আদেশ সংশোধন করে সোমবার (২৭ সেপ্টেম্বর) এ রায় দেন।

তবে পর্যবেক্ষণে কী থাকবে তা পাওয়ার জন্য রায়ের পূর্ণাঙ্গ অনুলিপি প্রকাশ হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে।

সুনির্দিষ্ট বিধি বা আইন প্রণয়ন না করা পর্যন্ত দুর্নীতি মামলার আসামি বা সন্দেহভাজন কোনো ব্যক্তির বিদেশ যাওয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা দেওয়ার বিষয়ে দুদক নয়, সিদ্ধান্ত নেবেন বিশেষ জজ আদালত- হাইকোর্টের এমন অভিমত দিয়ে দেওয়া রায় ও আদেশের বিরুদ্ধে দুদক আপিল বিভাগে ৫টি আবেদন করেছিলো।

গত ১৩ সেপ্টেম্বর প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন আপিল বেঞ্চে শুনানি শেষে রায়ের জন্য আজ দিন ধার্য করেছিলেন।

আদালতে দুদকের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী মো. খুরশীদ আলম খান। রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিন। অন্যপক্ষে ছিলেন আইনজীবী প্রবীর নিয়োগী, মুরাদ রেজা, মাহবুব উদ্দিন খোকন, আরশাদুর রউফ ও মো. রুহুল কুদ্দুস।

দেশ ত্যাগে দুদকের নিষেধাজ্ঞার বিরুদ্ধে পৃথক ৫টি রিটে হাইকোর্ট তিনটি রায় ও দুটি আদেশ দেন। ওইসব আদেশের বিরুদ্ধে লিভ টু আপিল করে দুর্নীতি দমন কমিশন।

এ ৫টি রিটের মধ্যে একটি হলো, নরসিংদীর আতাউর রহমানের মামলা। বিদেশ যাওয়ায় নিষেধাজ্ঞা দেওয়ার বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে নরসিংদীর আতাউর রহমান ওরফে সুইডেন আতাউর রহমানের করা এক রিট আবেদনে জারি করা রুলের ওপর ১৬ মার্চ রায় দেন হাইকোর্ট।

দুদকের দেওয়া নিষেধাজ্ঞার চিঠি অবৈধ ঘোষণা করে বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চ অভিমতে বলেন, সুনির্দিষ্ট বিধি বা আইন প্রণয়ন না করা পর্যন্ত দুর্নীতি মামলার আসামি বা সন্দেহভাজন কোনো ব্যক্তির বিদেশ যাওয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা দেওয়ার বিষয়ে দুদক নয়, সিদ্ধান্ত নেবেন বিশেষ জজ আদালত।

হাইকোর্ট বলেছেন, বিদেশ যাওয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা দেওয়ার বিষয়ে দুদকের সুনির্দিষ্ট আইন বা বিধি নেই। এ কারণে এ বিষয়ে দ্রুত সুনির্দিষ্ট আইন বা বিধিমালা করা প্রয়োজন। তাই আশা করছি, এ বিষয়ে দুদক বা সংশ্লিস্ট মন্ত্রণালয় আইন বা বিধি করার বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেবে।

মমেক হাসপাতালে করোনা ইউনিটে আরও ৩ জনের মৃত্যু

1

ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ (মমেক) হাসপাতালের করোনা ইউনিটে আরও তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। তাদের মধ্যে দুইজন করোনায় আক্রান্ত হয়ে ও একজন উপসর্গ নিয়ে ইউনিটটিতে চিকিৎসাধীন ছিলেন।

সোমবার (২৭ সেপ্টেম্বর) সকালে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন হাসপাতালের করোনা ইউনিটের মুখপাত্র ডা. মহিউদ্দিন খান মুন।

তিনি জানান, রোববার সকাল ৮টা থেকে সোমবার সকাল ৮টা পর্যন্ত ইউনিটটিতে করোনায় মারা যাওয়া দুইজনই ময়মনসিংহের। এছাড়াও একই সময়ের মধ্যে করোনা উপসর্গ নিয়ে জামালপুর সদরের এক নারীর মৃত্যু হয়েছে।

এ নিয়ে চলতি সেপ্টেম্বর মাসে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে করোনা ও উপসর্গে ১১৭ জনের মৃত্যু হলো। এর আগে গত জুলাই ও আগস্ট মাসে ৯০১ জনের মৃত্যু হয়েছিল।

ডা. মুন আরও জানান, করোনা ইউনিটে নতুন করে ১৩ জন ভর্তিসহ ১০৫ জন রোগী চিকিৎসাধীন আছেন। এদের মধ্যে আইসিইউতে রয়েছেন ১০ জন। আর ওই সময়ে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৩৩ জন।

ময়মনসিংহের জেলা সিভিল সার্জন ডা. নজরুল ইসলাম জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় ৩৭৩টি নমুনা পরীক্ষায় ২৩ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। শনাক্তের হার ৬.১৭ শতাংশ।

এ পর্যন্ত জেলায় মোট আক্রান্ত ২১ হাজার ৯০৬ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ২০ হাজার ৮৮০ জন।

হাঁড়িতে ভাসিয়ে শিশুকে পোলিও টিকা খাওয়াতে নিয়ে এলেন বাবা

31

লাগাতার বৃষ্টিতে গ্রামের মাটির রাস্তা ওঠেছে পানি। সদ্য বাবা হওয়া নিজামুদ্দিন মোল্লা তাই কার্যত ঘরবন্দি। তারই মধ্যে রোববারের সকালে ‘আশাদিদিদের’ ডাকাডাকি, ‘পোলিয়ো খাওয়ানোর বাচ্চা থাকলে নিয়ে এসো গো…।’

রাস্তায় পানি যতই থাকুক, দেরি করতে চাননি ব্যাগ তৈরির কারিগর নিজামুদ্দিন। নবজাতককে বড় মুখওয়ালা অ্যালুমিনিয়ামের হাঁড়িতে শুইয়ে জলে ভাসিয়ে পোলিও টিকা খাওয়াতে নিয়ে গেলেন তিনি। সঙ্গীর কাঁধে চাপিয়ে আনলেন আড়াই বছর বয়সের বড় ছেলে শামিমকেও। বললেন, “বাচ্চা দু’টোকে পোলিও তো খাওয়াতেই হবে। তাই এ ভাবেই পৌঁছে গেলাম।”

এই ঘটনাটি ঘটেছে ভারতে। ক্যানিং-২ নম্বর ব্লকের সারেঙ্গাবাদ গ্রাম পঞ্চায়েতের সিংহেশ্বর সাবসেন্টার এলাকা এখন অনেকটা পানির নিচে। আবার শুরু হওয়া বৃষ্টিতে পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ হতে পারে।

পোলিও টিকা খাওয়াতে এ দিন সেখানেই নবজাতককে হাঁড়িতে ভাসিয়ে নিয়ে আসতে দেখে চমকে উঠেছিলেন আশাকর্মী থেকে এএনএম (২) বা অগ্জ়িলিয়ারি নার্স মিডওয়াইফ-ও।

কোথাও কোমর সমান, কোথাও হাঁটু সমান জলে নেমে বাচ্চাদের পোলিয়ো টিকা খাওয়াতেই নিজামুদ্দিনদের এলাকায় পৌঁছে গিয়েছিলেন আশাকর্মী সোনালি প্রধান এবং এএনএম (২) নমিতা হালদার।

তারা বলেন, “আমরা প্রায় হাঁটুজলে দাঁড়িয়ে ডাক দিলাম। কারণ তার পরে জল এত বেশি যে, পোলিও বাক্স নিয়ে যাওয়া মুশকিল।”

তাই বলে বাচ্চাকে হাঁড়িতে শুইয়ে পোলিও! কল্পনাও করতে পারেননি ওই স্বাস্থ্যকর্মীরা। সোনালি জানাচ্ছেন, আচমকাই তারা দেখেন, জলে ভাসানো একটি হাঁড়ি ধরে ধীরে ধীরে এগিয়ে আসছেন নিজামুদ্দিন। পেছনে অন্য এক জনের কাঁধে তার বড় ছেলে।

সোনালি বলেন, “প্রথমে চমকে উঠেছিলাম। পরে বুঝলাম, হাঁড়িতে করে একরত্তিটাকেই নিয়ে আসছে।”

নমিতা জানান, শিশুকে ওই ভাবে আনতে দেখে তাঁরাও মূল রাস্তা থেকে নেমে কিছুটা এগিয়ে যান। নিজামুদ্দিনের কাছে জানতে চান, “হাঁড়িতে করে কেন?” বছর সাতাশের নীজামুদ্দিন তাঁদের জানান, স্ত্রী সাফিয়া খাতুনের জল ঠেলে আসার ক্ষমতা নেই। আবার তিনি নিজেও ১৫ দিন বয়সের ছেলেকে কোলে নিয়ে জল ঠেলে আসতে ভয় পাচ্ছিলেন। কোনও ভাবে খুদে যদি পড়ে যায়! তাই আশাকর্মীদের ডাক শুনেই বাড়িতে থাকা বড় মুখের হাঁড়িতে ছেলেকে কাঁথায় মুড়িয়ে শুইয়ে নিয়ে আসার পরিকল্পনা করেন নিজামুদ্দিন।

রাজ্যের স্বাস্থ্য কর্মকর্তা অজয় চক্রবর্তী এদিন জানান, সাধারণত মায়েরাই বাচ্চাদের পোলিও খাওয়াতে নিয়ে আসেন। সেখানে এক জন বাবা দুর্যোগের মধ্যে এ ভাবে দায়িত্ব পালন করেছেন, এটা খুবই প্রশংসার।

তিনি বলেন, দুর্যোগ ঠেলে, কোমর সমান জলে দাঁড়িয়ে আশাকর্মী ও স্বাস্থ্যকর্মীরা যে-ভাবে পোলিও খাওয়ানোর কাজ করছেন, তাতে কোনও প্রশংসাই যথেষ্ট নয়। এদের জন্য গোটা স্বাস্থ্য দপ্তর গর্বিত।

হাজারো পর্যটকে মুখর কিশোরগঞ্জের হাওর

3

চারদিকে থৈ থৈ পানি। দিগন্তবিস্তৃত হাওরে ছলাত ছলাত ঢেউয়ের গর্জন। রোদ আছড়ে পড়া জলের বুক চিড়ে এগিয়ে যাচ্ছে ছোট ছোট ডিঙি নৌকা। চারদিকে পাখিদের ওড়াউড়ি আর হাঁসের ডুবসাঁতার। বর্ষা এলেই এমন জৌলুস ছড়ায় কিশোরগঞ্জের হাওর। ফিরে পায় আপন রূপ।

কিশোরগঞ্জের ১৩টি উপজেলার মধ্যে তিনটি সম্পূর্ণ হাওর। অপর তিনটি আংশিক হাওর। ছয় মাসই হাওরে জমে থাকে বর্ষার পানি। এ সময় বিশাল হাওর অঞ্চলকে মনে হয় সাগরের মতো। ভরা বর্ষায় দূরের একেকটি গ্রামকে মনে হবে ভাসমান কচুরি পানার মতো। যেতে যেতে পেছনে হাতছানি দিয়ে ডাকবে নীল আকাশ।

কখনো রোদ কখনোবা বৃষ্টি। হাওরে ভেসে যেতে যেতে চোখে পড়বে ছোট ছোট মাছ ধরার নাও। দেখা মিলবে জলের মাঝখান দিয়ে ছুটে চলেছে কালো পিচঢালা প্রসস্থ সড়ক। দুই পাশে উত্তাল ঢেউয়ের গর্জন। এমন সম্মোহন জাগানিয়া প্রকৃতির বুকে হারিয়ে হাওরের সৌন্দর্য উপভোগ করতে ছুটে আসছেন হাজারো ভ্রমণপিপাসু। কেউ ছুটছেন অটোরিকশা কিংবা মোটরসাইকেলে চড়ে সাঁই সাঁই আওয়াজ তুলে। রাস্তার ধারে চা-কফির দোকানে ভিড় করছেন অনেকে। কেউবা প্রিয়জনকে নিয়ে বেরিয়ে পড়ছেন ছোট্ট নৌকা নিয়ে। এমন মধুর স্মৃতিটুকু ক্যামেরাবন্দি করছেন অনেকে।

এক সময় হাওরের দুর্গম যোগাযোগ ব্যবস্থার অভূতপূর্ব উন্নয়নের সঙ্গে সঙ্গে পর্যটনের নতুন এলাকা হয়ে উঠেছে কিশোরগঞ্জের হাওর। পর্যটকদের আগমনে মুখর হয়ে ওঠে হাওর জনপদ। মিঠামইনের বিস্ময়কর অলওয়েদার সড়ক, প্রেসিডেন্ট রিসোর্ট, করসবন, নিকলীর বেড়িবাঁধ, বালিখোলাসহ বেশকিছু এলাকা আকর্ষণ করছে তাদের। তবে এখনো হাওরে গড়ে খাবার হোটেলসহ পর্যটকদের জন্য পর্যাপ্ত সুযোগ-সুবিধা। তবে দিনে দিনে পর্যটনের নতুন সম্ভাবনা দেখা দিচ্ছে কিশোরগঞ্জের হাওরকে ঘিরে। এরই মধ্যে হাওরকে পর্যটন এলাকা ঘোষণার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। নেওয়া হচ্ছে সব ধরনের ব্যবস্থাও।

ইটনা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান চৌধুরী কামরুল হাসান বলেন, এক সময় হাওরবাসীর দুর্ভোগের সীমা ছিলো না। ‘বর্ষায় নাও আর শুকনায় পাও’ এমন প্রবাদই ছিল হাওরবাসীর কাছে প্রকৃত বাস্তবতা। কিন্তু রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদের অবদানে হাওরে ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে। দেখা দিয়েছে পর্যটনের অপার সম্ভাবনা। অর্থনীতিতেও এসেছে পরিবর্তন। এ ধারা অব্যাহত রাখতে পর্যটন শিল্পের বিকাশ ঘটাতে হবে।

মিঠামইন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম জেমস বলেন, এক সময় হাওরের মানুষের বিড়ম্বনার শেষ ছিল না। তিন উপজেলার মানুষের সঙ্গে একে-অন্যের দেখা হতো কালে ভদ্রে। গ্রামগুলোকে মনে হতো ভাসমান দ্বীপের মতো। এখন দিন বদলেছে। এক অলওয়েদার সড়কই বদলে দিয়েছে হাওরের সামগ্রিক চিত্র।

তিনি আরও বলেন, বর্তমানে পুরো বর্ষায় এমনকি শরতের দিনেও হাওরে পর্যটকদের ভিড় লেগেই থাকে। সারা দেশের হাজার হাজার মানুষ ছুটে আসেন হাওরে। তবে পর্যটকদের জন্য এখনো গড়ে উঠেনি আধুনিক সুযোগ-সুবিধা।

কিশোরগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক বলেন, হাওরের যোগাযোগ ব্যবস্থা এক সময় এতোটাই দুর্গম ছিল যে কেউ সহজে হাওরে যেতে চাইতো না। রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর আন্তরিকতায় হাওর এখন সারাদেশের কাছে লোভনীয় স্থান। নজিরবিহীন উন্নয়ন হয়েছে হাওরে। অলওয়েদার সড়ক হয়েছে। জেলার সঙ্গে সাব-মার্সেবল সড়কে সরাসরি গাড়ি নিয়ে যোগাযোগ করা যায়। ফলে হাওর হয়ে উঠেছে পর্যটনের অন্যতম স্পট।

পর্যটকদের জন্য নতুন হোটেল-মোটেল নির্মাণসহ তাদের নিরাপত্তায় বিভিন্ন উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে বলে জানিয়ে এ সংসদ সদস্য বলেন, পর্যটকদের নিরাপত্তায় হাওরে পুলিশ চৌকি ও ট্যুরিস্ট থানা নির্মাণের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। মিঠামইন সদরে উন্নতমানের রিসোর্ট হচ্ছে। তবে সবকিছুই হবে পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা করে। জীববৈচিত্রের ক্ষতি হয় এমন কোনো উন্নয়ন করা হবে না।

তিনি আরও বলেন, হাওরের পর্যটন শিল্পের বিকাশে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে উচ্চ পর্যায়ের একটি বিশেষজ্ঞ দল গঠন করা হয়েছে। জেলা সদরের সঙ্গে হাওরকে যুক্ত করে নির্মাণ করা হচ্ছে উড়াল সড়কও।

Dhaka, BD
haze
28 ° C
28 °
28 °
83 %
0kmh
75 %
রবি
33 °
সোম
30 °
মঙ্গল
32 °
বুধ
32 °
বৃহঃ
31 °

সর্বাধিক পঠিত