এবার শ্রীনিবাসনের দ্বারস্থ টাইগাররা

1
143

স্পোর্টস ডেস্ক : সাম্প্রতিক সময়ে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের অবিচ্ছেদ্য অংশই তিনি। খেলোয়াড়দের খুঁটিনাটি সমস্যাগুলো ধরিয়ে দেওয়া কিংবা প্রতিপক্ষের শক্তিমত্তা-দুর্বলতা বিশ্লেষণ করে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য প্রদান করাই মূলত টাইগারদের ভারতীয় কম্পিউটার এনালিস্ট শ্রীনিবাসনের কাজ। এসব কাজ তিনি করে আসছেন গত কয়েক বছর ধরে।

ব্যতিক্রম নয় আসন্ন ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজেও। তবে এবার যেন বেড়েছে শ্রীনিবাসনের কাজের ব্যপ্তি, যাকে ‘শ্রী’ নামেই ডেকে থাকেন খেলোয়াড়-কোচিং স্টাফরা। সেই শ্রী এবার নতুন ও অচেনা ক্যারিবীয় খেলোয়াড়দের চেনানোর দায়িত্বটাও নিয়েছেন নিজের কাঁধে। তার দেওয়া ভিডিও ফুটেজ থেকেই প্রতিপক্ষ সম্পর্কে ধারণা নিচ্ছে বাংলাদেশ দল।

করোনা সতর্কতা ও জৈব সুরক্ষা বলয়ের কঠিন জীবনের কারণে ওয়েস্ট ইন্ডিজের নিয়মিত দলের প্রায় একডজন খেলোয়াড় আসেননি বাংলাদেশ সফরে। ফলে এক ঝাঁক তরুণ ও অনভিজ্ঞ ক্রিকেটার নিয়েই তিন ওয়ানডে ও দুই টেস্ট খেলতে এসেছে ক্যারিবীয়রা। যাদের ব্যাপারে তেমন কিছুই জানে না বাংলাদেশ দল।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে যেহেতু নতুন, তাই তাদের সম্পর্কে ধারণা নিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজের ঘরোয়া ক্রিকেটের ভিডিও ফুটেজ সংগ্রহ করেছেন টাইগারদের কম্পিউটার এনালিস্ট শ্রীনিবাসন। সেখান থেকেই বের করেছেন শক্তিমত্তা-দুর্বলতা। যা কাজে লাগছে বাংলাদেশের প্রস্তুতিতে। আজ (রোববার) এটি জানিয়েছেন টাইগারদের হেড কোচ রাসেল ডোমিঙ্গো।

অনলাইন প্রেস কনফারেন্সে ডোমিঙ্গোর কাছে প্রশ্ন রাখা হয়েছিল অচেনা প্রতিপক্ষের ব্যাপারে। তখন তিনি বলেন, ‘শ্রী (শ্রীনিবাসন) আমাদের জন্য দারুণ কাজ করেছে। তার কাছে ওয়েস্ট ইন্ডিজের প্রায় সব খেলোয়াড়ের সিপিএল (ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগ) ও ঘরোয়া ওয়ানডে টুর্নামেন্টের খেলার ফুটেজ আছে। সে আমাদের জন্য কিছু ভিডিওর ব্যবস্থা করতে পেরেছে।’

সেসব ফুটেজ দেখে টাইগার হেড কোচের মূল্যায়ন, ‘আমরা ভিডিও দেখে তাদের সব খেলোয়াড়ের ব্যাপারে জানতে পেরেছি। তারা হয়তো আন্তর্জাতিক ক্রিকেট বিবেচনায় অনভিজ্ঞ দল। তবে দলের অনেক খেলোয়াড়ই ঘরোয়া টুর্নামেন্ট ও সিপিএলের পরিচিত মুখ। তাদের রেকর্ড দারুণ।’

প্রতিপক্ষ অনভিজ্ঞ ও আনকোরা হলেও হেলাফেলার বিন্দুমাত্র সুযোগ নেই, এমনটাই মনে করেন ডোমিঙ্গো। তাই খেলার শুরু থেকে শেষপর্যন্ত সতর্ক থাকার দিকেই তাগাদা দিচ্ছেন এ দক্ষিণ আফ্রিকান কোচ।

ডোমিঙ্গোর ভাষ্য, ‘এটা আমাদের জন্য কঠিন চ্যালেঞ্জ হতে যাচ্ছে। ওয়েস্ট ইন্ডিজ সমৃদ্ধ ক্রিকেট জাতি। এসব তরুণ খেলোয়াড়দের নিজেদের প্রমাণেরও একটা বিষয় থাকবে এখানে। তারা চাইবে দলে পাকাপোক্ত হয়ে থেকে যেতে। নিশ্চিতভাবেই তারা অনেক উদ্যমী থাকবে। তাই প্রথম বল থেকেই আমাদের ফোকাস ধরে রাখতে হবে।’

তিনি আরও যোগ করেন, ‘আমরা ওদের স্রেফ চাপা দেয়ার কথা ভাবতে পারি না। সিরিজটা খুবই কঠিন হতে চলেছে। লড়াই করতে হবে, প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ খেলা হবে। তারা অনেক ঘরোয়া ক্রিকেট খেলেছে। তারা সবাই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলতে প্রস্তুত। আমাদের আত্মতুষ্টিতে ভোগার সুযোগ নেই।’