করোনায় আক্রান্ত রোগীদের বাঁচাতে মাইক্রোসফটের প্লাজমাবট

7
675

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি : প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের বাঁচাতে সুস্থ হওয়া ব্যক্তিদের সাহায্যে নিয়ে প্লাজমা থেরাপির উদ্যোগ নিয়েছে মাইক্রোসফট।

মঙ্গলবার (২১ এপ্রিল) মাইক্রোসফট এক বিবৃতিতে জানানো হয়, তারা ‘সেলফ স্ক্রিনিং টুল’ নিয়ে কাজ করছে। এই টুল ব্যবহার করে একজন ব্যক্তি জানতে পারবে তিনি একজন করোনা আক্রান্ত ব্যক্তিকে তার প্লাজমা দান করতে পারবেন কিনা। এই টুলটি মাইক্রোসফট ওয়ার্ল্ডের ‘কোভিড-১৯ প্লাজমা অ্যালায়েন্স’ গ্রুপের অন্তর্ভুক্ত।

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, দুটি ভিন্ন উপায়ে এই প্লাজমা থেরাপি পরিচালনা করা যেতে পারে।

প্রথমত, অসুস্থ রোগীদের মাঝে প্রয়োজনের ভিত্তিতে সুস্থ হওয়া ব্যক্তির কাছ থেকে সংগৃহীত প্লাজমা দান করা যাবে।

দ্বিতীয়ত, এই মুহূর্তে প্রধান কাজ হচ্ছে সেরে ওঠা রোগীদের থেকে বিপুল পরিমাণে প্লাজমা সংগ্রহ করে আক্রান্তদের জন্য প্রস্তুত রাখা। তা দিয়ে সম্ভাব্য থেরাপি দেওয়া যেতে পারে। এই থেরাপিকে বলা হচ্ছে, পলিক্লোনাল হাইপারমিউন গ্লোবুলিন (এইচ-আইজি)। এই প্রক্রিয়ায় ডোনার থেকে রোগীর শরীরে ভাইরাস বা ব্যাক্টেরিয়া প্রবেশ করার সম্ভাবনা থাকে। তবে বিভিন্ন প্রক্রিয়ায় পরিশোধিত হয়ে তা মানবদেহের জন্য সম্পূর্ণ নিরাপদ নিশ্চিত করা হবে এবং সহজেই মজুদ করে রাখা যাবে। যা ভবিষ্যতে এমন ধরনের মহামারি ঠেকাতে কাজে দেবে।

মাইক্রোসফট বলছে, তারা একটি র‍্যাপিড রিসার্চ করেছে, যার ফলাফল তাদের বিশেষজ্ঞসহ অন্যান্য স্বাস্থ্য ও নিরাপত্তা গবেষকদের সঙ্গে আলোচনা করেছে। যা থেকে তারা আশা করছে, বিশ্বব্যাপী এই মহামারি ঠেকাতে প্লাজমা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। তবে এখনও এ বিষয়ে নানা পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালাচ্ছে তারা।

এর আগে, মাইক্রোসফট সেন্টার ফর ডিসিস কন্ট্রোল এন্ড প্রিভেনশন (সিডিসি) সঙ্গে যৌথভাবে একটি করোনা ভাইরাস সেলফ চেকার বট তৈরি করে। বর্তমানে বিশ্বব্যাপী ১ হাজার ৩০০ কোভিড-১৯ বটস রয়েছে।